Breaking News
Home / স্থানীয় সংবাদ / লকডাউনের মধ্যেও নগরীতে যানজট, ভোগান্তি

লকডাউনের মধ্যেও নগরীতে যানজট, ভোগান্তি

শেখ ফেরদৌস রহমান
মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রকোপ যখন বাড়ছে প্রতিরোধে দেশজুড়ে চলছে কঠোর লকডাউন। তবে দেখা যায় নগর জুড়ে বাড়ছে যানবহনের সংখ্যা। সেই সাথে সৃষ্টি হচ্ছে যানজট। মুখে অনেকে দ্বায় সারা মাস্ক পরিধান করলেও নেই সামাজিক দুরুত্ব। যে কারণে বোঝার কোন উপায় নেই দেশ জুড়ে চলছে লকডাউন।
খুলনা লকডাউনে ২০তম দিনের চিত্র দেখা যায় নগরীর বিভিন্ন স্থানে অনাকঙ্খিতভাবে পথচারি চলাফেরা করছে। পাশাপাশি মার্কেটগুলোতে উপচে পড়া ভিড়। সরোজমিন দেখা যায় নগরীর ফুলবাড়ীগেট, দৌলতপুর, বৈকালী, নিউমার্কেট, শিববাড়ী মোড়, পাওয়ার হাউজ মোড়, ফেরঘিাট মোড়, ডাকবাংলো, পিকচ্যার প্যালেস মোড়, কেসিসি মার্কেট, রয়্যাল মোড়, ময়লা পোতা, সোনাডাঙ্গা, গল্লামারি, নিরালা মোড় পর্যন্ত থেমে থেমে দীর্ঘ যানজটের লাইন। বিশেষ করে ব্যক্তিগত মটর সাইকেলের পাশাপাশি ইজিবাইক, রিক্সা, ভান, মাহেন্দ্র, আতুল এর দখলে রয়েছে নগরীর গুরুত্বপুর্ন সড়কগুলো। এতে করে পবিত্র রমজান মাসে কাঠফাটা রোদে জরুরী ভিত্তিতে চলাচলের সময়ে সাধারণ পথচারি পড়ছেন চরম ভোগান্তিতে।
যানজটে আটকে পড়া পথচারি সাঈদুর রহমান বলেন, খুলনা মেডিকেলে হাসপাতালে রোগী ভর্তি রয়েছে। যাচ্ছিলাম জরুরী ভিত্তিতে হ্যারাজ মার্কেটে ওষুধ ক্রয় করতে। তবে খুলনা মেডিকেল থেকে হ্যারাজ মার্কেট পৌছেতে যেখানে। সময় লাগার কথা সর্বোচ্চ ১৫ মিনি সেখানে প্রায় ৪৫ মিনিট ওভার হয়েগেছে। তাছাড়া দেখা মূলত অনেকে ঘর থেকে বের হচ্ছেন শুধু মাত্র পোশাক ক্রয় করতে। খুলনা ফেরিঘাট এলাকায় দ্বায়িত্বরত এক ট্রাফিক পুলিশ বলেন, গতকালও এত বেশি যানজট ছিল না। হঠাৎ আজ দেখছি শহরে অতিরিক্ত যানজট। আমরা এই যানজট নিয়ন্ত্রণে সতর্ক অবস্থানে আছি। তাছাড়া লকডাউনে কর্তব্যরত একজন পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, আমরা নিয়মিত চৌকি বসিয়ে সন্দেহভাজন পথচারিদের জিজ্ঞাসাবাদ করছি। তবে শতকরা ৯৮ ভাগ যাত্রীরা বলছে সকলে জরুরী ভিত্তিতে ওষুধ ক্রয় করতে যাচ্ছেন বা রোগী আছে হাসপাতালে- এমন অজুহাত। পাশাপাশি কয়েকজন বলছেন ব্যাংকে জরুরী কাজ রয়েছে। ইজিবাইক চালক রাজু আহমেদ বলেন, লকডাউন এতদিন মানছি, সামনে ঈদ, খাবার যোগার করতে হবে। পাশপাশি পরিবারদের ঈদে নতুন পোশাক ক্রয় করতে হবে। করোনা হলে হোক, আগে পেট, পরে করোনা।
কে,এম,পি মিডিয়া এডিসি জাহাঙ্গির হোসেন বলেন, লকডাউন কার্যকরে পুলিশ যথেষ্ট কার্জকর ভুমিকা পালন করছে। তবে যানজট নিরসনে আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করব। পাশপাশি নিজেও সচেতন থাকতে হবে।
খুলনা জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ ইউসুপ আলী বলেন, খুলনা জেলা প্রশাসন লকডাউনের শুরু থেকে নিয়মিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করছে। তবে হঠাৎ মার্কেট খোলার কারণে নগরীতে ছোট, ছোট যানবহনের সংখ্যা বেড়েছে। তারপরও বিনা কারণে ঘর থেকে বের হলে তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে। পাশপাশি ট্রাফিক পুলিশকে একটু সতর্ক অবস্থানে থাকা উচিত ।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*