Breaking News
Home / স্থানীয় সংবাদ / দিঘলিয়ায় দুর্বৃত্তদের হামলায় একই পরিবারের তিনজন আহত

দিঘলিয়ায় দুর্বৃত্তদের হামলায় একই পরিবারের তিনজন আহত

ভিকটিমদের সহযোগিতা করার অপরাধে ঘরে আগুন

স্টাফ রিপোর্টার
পূর্ব শত্রুতার জের ধরে দিঘলিয়ার মাঝিগাতীতে বৃদ্ধ-বৃদ্ধাকে হাতুড়ি পেটানো হয়েছে। নির্যাতিতদের পাশে দাঁড়ানোর অপরাধে এক নারী বসত ঘর পুড়িয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। আরেক মহিলাকে মারধর করেছে। আহতদের খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতরা হলেন, সুশান্ত পাত্র (৬০), স্ত্রী মিনা পাত্র (৫৭) ও মেয়ে চন্দ্রা পাত্র(২২)। এ দু’টি ঘটনায় ভিকটিম পরিবার সংশ্লিষ্ট থানায় অভিযোগ দাখিল করেছেন বলে স্বীকার করেছেন দিঘলিয়া থানার এসআই তন্ময় মহন্ত। তিনি এ দু’টি অভিযোগ তদন্তকারী কর্মকর্তা। তিনি আজ শুক্রবার ঘটনা তদন্তে যাবেন তারপর অভিযোগ রেকর্ড করবেন বলে তিনি জানান।
অভিযোগ সূত্রে প্রকাশ, পূর্বশত্রুতার জের ধরে দুর্বৃত্তরা গত ৩ জুন সন্ধ্যায় সুশান্ত পাত্রের ছেলে দেবুকে দেশী অস্ত্র নিয়ে মারধর করার জন্য ধাওয়া করে। কিন্তু সে দৌড়ে মাঝিরগাতী বাজারের উত্তর পাশে নিজ বাড়িতে চলে আসে। এ সময় তা মেয়ে চন্দ্রা ঠেকাতে গেলে দুর্বৃত্তরা তাকে মারধর করে আহত করে। বিষয়টি এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানানোর কারণে দুর্বৃত্তরা আরো ক্ষীপ্ত হয়। তারা ৫ জুন বিকেলে স্থানীয় আমবাড়িয়া প্রাইমারী স্কুলের দক্ষিণ পাশে নতুন পাকা বাড়ি পানি দিতে যান বাদী ও তার স্ত্রী। এ সময় দুর্বৃত্তরা দেশী অস্ত্র নিয়ে ওই বাড়ির ভিতর প্রবেশ করে। তারা বৃদ্ধ ও বৃদ্ধাকে হাতুড়ি পেটা, ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানো ও লাঠি দিয়ে মারধর করে রক্তাক্ত জখম করে। যাওয়ার সময় তাদের নির্মানাধীন বিল্ডিং-এর প্রায় ১২ হাজার টাকা মূল্যের রড নিয়ে যায়। ভিকটিমদের ডাক চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে এলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। তখন আহতদের খুমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ সময় ভিকটিমদের ফাঁকা বাড়িতে প্রতিবেশী তৃপ্তি বিশ্বাস ঘুমাতে আসে। এ সুযোগে দুর্বৃত্তরা গত বুধবার দিবাগত রাতে (৩টা থেকে ৪টার মধ্যে) তৃপ্তির টিন ও গোলপাতার দিয়ে তৈরী বসত ঘর আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়। আগুনের লেলিহান শিখা দেখে প্রতিবেশীরা ছুটে আসে আগুন পানি দিয়ে নেভাতে সক্ষম হয়। এ দু’টি পৃথক ঘটনায় থানায় সুশান্ত ও তৃপ্তি দু’টি অভিযোগ দাখিল করেছেন। দুর্বৃত্তদের অব্যাহত হুমকি ধামকিতে দু’পরিবারই চরম আতংকের মধ্যে রয়েছেন বলে ভিকটিম জানান।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*