Breaking News
Home / স্থানীয় সংবাদ / গোপালগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় এক ডাক্তারের পরিবারসহ ৯ জন নিহত

গোপালগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় এক ডাক্তারের পরিবারসহ ৯ জন নিহত

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি :
গোপালগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় এক ডাক্তারের পরিবারসহ ৯ জনের মৃত্যু ঘটেছে। শনিবার সকাল ১১টার দিকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের কাশিয়ানী উপজেলার দক্ষিণ ফুকরা এলাকায় একটি যাত্রীবাহী বাস, একটি প্রাইভেটকার ও একটি মোটরবাইকের ত্রিমুখী সংঘর্ষে এ ঘটনা ঘটে।
নিহতরা হলেন, প্রাইভেটকারে থাকা ঢাকার বারডম হাসপাতালের এ্যানেস্থেসিয়া ডাক্তার ও গোপালগঞ্জ শহরের উদয়ন রোডের প্রফুল্ল কুমার সাহার ছেলে ডা. বাসুদেব সাহা (৫১), তার স্ত্রী শিবানী সাহা (৪২) ও ছেলে ঢাকার আহসানউল্যাহ বিশ^বিদ্যালয়ের ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী স্বপ্নীল সাহা (১৯), প্রাইভেটকারের চালক ঢাকার দোয়ারী এলাকার আজিজুল (৪৫), মোটরবাইকের আরোহী কাশিয়ানী উপজেলার দক্ষিণ ফুকরা গ্রামের জিন্দার মোল্লার ছেলে অনিক মোল্লা (২১) ও খায়েরহাট গ্রামের ইয়ার আলীর মেয়ে অনিফা (২০), বাসযাত্রী বরগুনা জেলার পাথরঘাটা উপজেলার চরদোয়ানী গ্রামের আব্দুর রশিদ খানের ছেলে আলতাফ হোসেন খান (৫৫) এবং মহাসড়কের পাশে ধান মাড়াইরত দক্ষিণ ফুকরা গ্রামের ফিরোজ মোল্লা (৫০) ও তার স্ত্রী রুমা বেগম (৪০)। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ঘটনাস্থলে বরগুনার পাথরঘাটা থেকে ঢাকাগামী রাজীব পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস (ঢাকা মেট্রো ব-৪৯৬০) এবং ঢাকা থেকে গোপালগঞ্জগামী প্রাইভেটকার (ঢাকা মেট্রো-গ- ৩৩-২৫০০) ও মোটরÍবাইকের (গোপালগঞ্জ ল ১১-৩১৯৭) মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাইভেটকারটি মহাসড়কের পাশে মাড়াইকলের উপর ছিটকে পড়ে, মোটরবাইকটি দুমড়ে মুচড়ে যায় এবং যাত্রীবাহী বাসটি উল্টে গিয়ে মহাসড়কের পাশে গাছের উপর আছড়ে পড়ে। এতে বাসের সম্মুখভাগ ভেঙ্গে গাছ ভিতরে ঢুকে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই ডাক্তার পরিবারসহ ৮ জনের মৃত্যু ঘটে। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ অন্ততঃ ৩০ জন আহতকে উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ ২৫০শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে পাঠায়। সেখানে আরেকজনের মৃত্যু ঘটে। হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন বাসের ১৮ যাত্রী। হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. অসিত কুমার মল্লিক জানিয়েছেন, একজনকে আশংকাজনক অবস্থায় খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। দুর্ঘটনায় মহাসড়কের ওই স্থানে একঘন্টা যান চলাচল বন্ধ ছিল। পরে পুলিশের উদ্ধার তৎপরতায় যান চলাচল স্বাভাবিক হয়ে যায়। জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা ও পুলিশ সুপার আয়েশা সিদ্দিকাসহ জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে হাসপাতালে গিয়ে রোগীদের চিকিৎসার খোঁজ খবর নেন।
ডা. বাসুদেব সাহার বড় ভাই জয়দেব সাহা জানিয়েছেন, তাদের মা বাড়িতে ভীষণ অসুস্থ। মা’কে দেখতেই সে তার পরিবার নিয়ে সকালে ঢাকা থেকে গোপালগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওনা হয়। আসার পথে ফেরিতে উঠে পরিবার নিয়ে সেলফি তুলে সে তার ফেসবুকেও স্ট্যাটাস দেয়। দুর্ঘটনার ১০ মিনিট আগে মোবাইল ফোনে সর্বশেষ তার সঙ্গে কথা হয়।
তিনি আরও জানান, বাড়িতে তার অসুস্থ মায়ের কথা ভেবে এ দুর্ঘটনার কথা এখনও বাড়িতে জানানো হয়নি। বাড়ির লোকজন কাঁদতেও পারছেনা। হাসপাতাল থেকে তাদের মরদেহ সরাসরি গোপালগঞ্জ পৌর মহাশ্মশাণে নিয়ে অন্তেষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*