Breaking News
Home / স্থানীয় সংবাদ / চিতলমারি ও মোল্লাহাটে গ্রামবাসীর সংঘর্ষ : বাড়ীঘর ভাংচুর ও লুটপাট আহত ১২

চিতলমারি ও মোল্লাহাটে গ্রামবাসীর সংঘর্ষ : বাড়ীঘর ভাংচুর ও লুটপাট আহত ১২

বাগেরহাট প্রতিনিধি :
বাগেরহাটের চিতলমারি ও মোল্লাহাট উপজেলা পল্লীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে পৃথকভাবে দুই পক্ষের সংঘর্ষে কমপক্ষে নারীসহ কমপক্ষে ১২ ব্যক্তি আহত হয়েছে। শুক্রবার দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত থেমে থেমে এ সংঘর্ষের সময় ৪ টি বসতঘর ভাঙচুর ও লুটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনা হয়েছে মোল্লাহাট উপজেলার কুলিয়া ইউনিয়নের চরকুলিয়া দাড়ীঘাটা ও চিতলমারি উপজেলার কলাতলা এলাকায়। এ সংঘর্ষের খবর পেয়ে চিতলমারি ও মোল্লাহাট থানা পুলিশ পৃথকভাবে স্ব ্স্ব এলাকায় গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আহতদের মোল্লাহাট চিতলমারি হাসপাতালে ভর্ত্তি করা হয়েছে। মোল্লাহাট হাসপাতালে চিকিৎসাধিন খাদিজা বেগম জানান, এলাকার আজাদ শেখ ও আব্বাস শেখ আপন দুই ভাই। আর জমিজমা নিয়ে এই দুই ভাইয়ে মধ্যে বিরোধের এক পর্যায়ে দুটি পক্ষে সংঘর্ষ বেধে যায়। এক পর্যায়ে আজাদ শেখ প্রাণ বাঁচাতে দৌড়ে এসে আমাদের ঘরে আশ্রয় নেয়। এ সময় তার ভাতিজা আরজু ও বাশারসহ ২০/২৫ জন লাঠিয়াল আমার বাড়ীতে হামলা করে। আজাদকে আশ্রয় দেয়ার কারণে তাদের পরিবারের উপর হামলা চালানো হয়। হামলাকারিা তার স্বামী, দেবর, বৃদ্ধ শশুর, শাশুড়ী ও চাচা শশুরকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। এছাড়া ঘরবাড়ি ভাঙচুর করা সহ প্রায় ৬ লাখ মালামাল লুট করে নেয়। আহতদের মধ্যে আবুল মুন্সি (৪০), বিল্লাল মুন্সী (২৩), লিয়াকত মুন্সি, (৩০), ফিরোজা বেগম (৬৫), আলাল মুন্সী (৭৫) ও খাদিজা বেগম (২৫) হাসপাতালে চিকিৎসাধিন রয়েছেন। এ বিষয়ে মোল্লাহাট থানার ওসি সোমেন দাস শনিবার সকালে জানান, সংঘর্ষের খবর পেয়ে তিনি সহ থানার অফিসার ও পুলিশ সদস্যরা দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন। পরবর্ত্তি সংঘর্ষের আশংকায় এলাকায় অতিরিক্তি পুলিশ মোতায়ন রাখা হয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোন পক্ষ থেকে থানায় অভিযোগ নিয়ে আসেনি। অপরদিকে, চিতলমারী উপজেলার কলাতলা এলাকায় মচন্দপুর এলাকায় শুক্রবার বিকেলে দুই পক্ষের মধ্যে ঢাল-শর্কি ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে মচন্দপুর গ্রামের মোঃ রহমান শেখ (৪২) এবং কাওছার শেখের লোকজনের মধ্যে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। রহমানের পক্ষে চিংগুড়ি গ্রামের ইউপি সদস্য মোঃ সোহাগ শেখ ও তার লোকজন এবং কাওছারের পক্ষে মচন্দপুর গ্রামের লোকজন সংঘর্ষে অংশগ্রহন করেন। এতে রহমান গ্রুপের মোঃ আকরাম গুরুত্বর আহত হয়েছেন। সংঘর্ষে অংশগ্রহনকারীরা কাউসার শেখ ও সুমন শেখের বাড়ী ভাঙচুর ও লুটপাট করেছে। সংঘর্ষের খবর পেয়ে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। সংঘর্ষে ব্যবহৃত ঢালসহ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ। বাগেরহাট জেলা পুলিশের মিডিয়া সেলের প্রধান সমন্বয়কারী পুলিশ পরিদর্শক এস এম আশরাফুল আলম বলেন গ্রামবাসির সংঘর্ষের ঘটনায় এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যরা বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করছেন। যদি কোন পক্ষ আইনগত সহায়তা চায় তাহলে পুলিশ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করবে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*